Opu Hasnat

আজ ১ ডিসেম্বর বুধবার ২০২১,

দামুড়হুদায় গম চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন চাষিরা! কৃষি সংবাদচুয়াডাঙ্গা

দামুড়হুদায় গম চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন চাষিরা!

গম চাষে আগ্রাহ নেই চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার কৃষকদের। ৫বছর আগে ক্ষেতে ব্ল্যাস্ট রোগে আক্রান্ত হয়ে কৃষকরা ব্যাপক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় এই চাষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন তারা। এই চাষের পরিবর্তে অন্যান্য ফসলের দিকে ঝুকছেন। উপজেলায় চাষিদের আবাদের তালিকা থেকে গমচাষ বাদ পড়ার উপক্রম হয়েছে। লাভ কম হওয়ায় এখন চাষীরা গমের পরিবর্তে ভুট্টা আবাদের দিকে ঝুকেছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানাগেছে, ২০১৬ সালে চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর জেলায় গম ক্ষেকে ব্ল্যাস্ট রোগে আক্রান্ত হয়। ঐ বছরে দামুড়হুদা উপজেলায় ১২১৫ হেক্টর জমিতে গম চাষ হয়েছিল। কিন্তু গমে শীষ বের হওয়ার পর ক্ষেত ব্যাপক হারে ব্ল্যাস্ট রোগে আক্রান্ত হওয়ায় কৃষকরা ৫০ শতাংশ ক্ষতির সম্মুখিন হয়।এরপর কৃষি অফিস থেকে ব্ল্যাস্ট ভাইরাসের জার্ম নষ্ট হওয়া পর্যন্ত তিন বছরের জন্য গম চাষ বন্ধ রাখতে বলা হয়। এরপর ২০১৭ সাল থেকে কৃষকরা নিজেদের চাহিদা মিটাতে উপজেলায় ১৫০/১৬০ হেক্টর জমিতে চাষ করছিল। চলতি বপন মৌসুমে চাষিদের এই চাষে তেমন আগ্রহ নেই। চলতি মৌসুমে ১৭০ হেক্টর জমিতে এই চাষের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে।

উপজেলার জয়রামপুর গ্রামের কৃষক বকুল হোসেন বলেন, আগে প্রতি বছর ৩/৪  বিঘা জমিতে গমের চাষ করা হতো। ২০১৬ সালে ৩বিঘা জমিতে গম চাষ করা হয়েছিল। কিন্তু গমের শীষ বের হওয়ার পর  ক্ষেতে ব্যাপক হারে ব্ল্যাস্ট রোগে আক্রান্ত হলে ক্ষেতের প্রায় ৬০শতাংশ গম নষ্ট হয়ে যায় এতে সে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এরপর থেকে গমচাষ বন্ধ করে ভুট্টার চাষ লাভজনক হওয়ায় ভুট্টা চাষ করা হচ্ছে। তবে এ বছর ১বিঘা জমিতে গমের চাষ করবো। একই গ্রামের কৃষক সালেকুর রহমান বলেন, গম চাষ রোগ বালাই বেশি ও ভালো লাভজনক না  হওয়ার কারনে গমের চাষ বন্ধ করে দিয়েছি। তবে এবার এক বিঘা জমিতে আবাদ করবো।

দামুড়হুদা উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মনিরুজ্জামান বলেন, ২০১৬ সালে চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর জেলায় গমক্ষেতে ব্যাপকহারে ব্ল্যাস্ট রোগে আক্রান্ত হওয়ায় কৃষকদেরকে তিন বছরের জন্য গম চষ বন্ধ রাখতে পরামর্শ দেওয়া হয়।এই তিন মাসে ভাইরাসের জার্ম নষ্ট হয়ে যাবে।চলতি মৌসুমে চাষিদের ব্ল্যাষ্ট প্রতিরোধি বারি-৩০ ও ৩৩ জাতের গম বপনের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে তাদের এই জাতের বিজ সরবরাহ করা হচ্ছে। এছাড়া ও ভুট্টা চাষ গমের তুলনায় লাভজনক হওয়ায় চাষিরা ভুট্টা আবাদের দিকে বেশি ঝুকে পড়েছে।