Opu Hasnat

আজ ৩০ জুলাই শুক্রবার ২০২১,

অবশেষে স্বপ্নের শিরোপা আর্জেন্টিনার হাতে খেলাধুলা

অবশেষে স্বপ্নের শিরোপা আর্জেন্টিনার হাতে

অবশেষে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলকে হারিয়ে কোপা আমেরিকার শিরোপা ঘরে তুলেছে আলবিসেলেস্তেরা। সেই সাথে শিরোপার জন্য আর্জেন্টিনার দীর্ঘ ২৮ বছরের প্রতীক্ষার অবসান ঘটলো। একই সাথে কোপায় সবচেয়ে বেশি (১৫টি) শিরোপা জেতার রেকর্ডে উরুগুয়ের সঙ্গী হলো আর্জেন্টিনা।

ডি মারিয়ার একমাত্র গোলের সুবাদে স্বপ্নের শিরোপা জিতে নিলো আর্জেন্টিনা। কোপা আমেরিকার শিরোপা ধরে রাখার মিশনে হোঁচট খেল ব্রাজিল। চিরপ্রতিদ্ব›দ্বী আর্জেন্টিনা ১-০ গোলের ব্যবধানে ঘরে তুলে নিলো কোপা আমেরিকার শিরোপা।

রোববার বাংলাদেশ সময় ভোর ৬টায় রিও দি জেনেইরোর মারাকানা স্টেডিয়ামে খেলাটি শুরু হয়।

মুখোমুখি দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। পুরো ফুটবল দুনিয়ার চোখ কোপার ফাইনালে। প্রথমার্ধ শেষে হতাশা নিয়েই ড্রেসিংরুমে ফিরতে হয়েছে নেইমারদের। আর ১-০ গোলের লিডে স্বস্তি নিয়ে ফিরেছেন মেসিরা। ২১ মিনিটে ডি পলের লং পাস থেকে দারুণ ফিনিশিংয়ে গোল করে আর্জেন্টিনাকে এগিয়ে নেন নেইমারের পিএসজি সতীর্থ ডি মারিয়া। প্রথমার্ধে ঐ গোল আর শোধ করতে পারেনি ব্রাজিল। ফলে এগিয়ে থেকই বিরতিতে যায় মেসির দল।

আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ১-০ গোলে পিছিয়ে থেকে প্রথমার্ধ শেষ করে ব্রাজিল। পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয়ার্ধে পরিকল্পনায় পরিবর্তন আনেন সেলেসাও কোচ তিতে। ফ্রেডকে উঠিয়ে রবার্তো ফিরমিনোকে নামিয়ে আরও আক্রমণাত্মক খেলার আভাস দেয় স্বাগতিকরা।

এই পরিবর্তনে আক্রমণে ধার বাড়ে তাদের। ৫২ মিনিটে জালে বল জড়ান রিচার্লিচন। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে বাতিল হয়ে যায় সে গোল। রেফারির অফসাইডের বাঁশি বাজালে হতাশ হতে হয় তাদের। এর ২ মিনিট পর আবারও সুযোগ পেয়েছিলেন রিচার্লিসন। কিন্তু আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজের নৈপুণ্যে এ যাত্রায়ও গোল করতে পারেননি এই ফরোয়ার্ড।

ম্যাচের শেষ পর্যন্ত দারুণ সব আক্রমণ শানালেও কোন দলই গোলর আদায় করতে পারেনি। ৮৮ মিনিটে গোলের সহজ সুযোগ মিস করেন মেসি। অতিরিক্ত সময়েও লিড বাড়াতে আক্রমণ চালায় মেসিরা। কিন্তু আসেনি সফলতা। শেষ পর্যন্ত ১-০ গোলেই শিরোপা খরা কাটে আর্জেন্টিনার। জয়োল্লাস করে মাঠ ছাড়ে স্কালোনি শিষ্যরা।  

ব্রাজিল সেমিফাইনালের অপরিবর্তিত প্রথম একাদশ নিয়েই ফাইনালে মাঠে নামে। এমনকি তাদের বদলি ফুটবলারের তালিকাও অপরিবর্তিত। তবে আর্জেন্টিনা প্রথম একাদশে একসঙ্গে পাঁচটি রদবদল করেছে। রিজার্ভ বেঞ্চে পাঠানো হয়েছে জেল্লা, গঞ্জালেস, মলিনা, তাগলিয়াফিকো ও রদ্রিগেসকে। প্রথম একাদশে ঢুকেছেন আকুনা, রোমেরো, মন্তিয়েল, পারেদেস ও দি মারিয়া।

ফাইনালের প্রথম একাদশে দি মারিয়াকে ফিরিয়ে তার ওপর আস্থা রেখেছিলেন আর্জেন্টিনা কোচ লিওনেল স্কালোনি। আস্থার যথাযথ মর্যাদা রাখেন তিনি।

২০০৪ সালে সিজার দেলগাদোর পর দি মারিয়া প্রথম আর্জেন্টাইন ফুটবলার, যিনি কোপার ফাইনালে গোল করলেন।