Opu Hasnat

আজ ১৫ জুন শনিবার ২০২৪,

মোরেলগঞ্জে প্রতিবন্ধী পরিবারে সন্ত্রাসী হামলা, আহত ৫ বাগেরহাট

মোরেলগঞ্জে প্রতিবন্ধী পরিবারে সন্ত্রাসী হামলা, আহত ৫

মোরেলগঞ্জে  প্রতিবন্ধী পরিবারে সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে উপজেলা প্রেসক্লাবের সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগী পরিবার। সংবাদ সম্মেলনের লিখিত অভিযোগে জানান, জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সৎ ভাইদের নেতৃত্বে সন্ত্রাসী  হামলার শিকার হয়েছে দুই প্রতিবন্ধী সদস্যসহ  একই পরিবারের পাঁচ সদস্য আহত হন।

শুক্রবার  (২ জুন) সকালে  বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার জিউধরা ইউনিয়নের মৌলভীবাজার গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এতে জাহাঙ্গীর  (৫৩) নামে এক মসজিদের  ইমাম তার প্রতিবন্ধী স্ত্রী  ছবি বেগম (৪৩) প্রতিবন্ধী  ছেলে  সাব্বির  (২০), বোন নাসিমা বেগম (৩৮), ভগ্নপতি  খলিলুর রহমান (৪৫)  আহত হয়েছে। এর মধ্যে  গুরুতর আহত অবস্থায় জাহাঙ্গীরকে  প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

আহতরা ও এলাকাবাসী শুক্রবার  সন্ধ্যায় মোরেলগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে জানান, উপজেলার মৌলভীবাজার গ্রামের হাফেজ মোঃ জাহাঙ্গীর  হোসেন স্থানীয়  একটি মসজিদের  ইমাম। পিতা আমজাদ হোসেন তাকে ২ কাঠা জমি রেজিস্ট্রী করে দেয়। এতে সৎ ভাই ইমরান সরদার(৪৩), ইমরানের ছেলে তানভীর  সরদার (২০), সৎ ভাই মাসুম সরদার ও এদের পরিবারের লোকজন পিতা আমজাদ হোসেন ও জাহাঙ্গীরের পরিবারের  সাথে খারাপ আচরণ করে আসছিল।  এছাড়া বড়ভাই  জাহাঙ্গীর ও তার পরিবারকে বিভিন্ন  সময়ে ভয়ভীতি  প্রদর্শন ও হুমকি ধমকি দিয়ে আসছিল। সর্বশেষ শুক্রবার (২ জুন)  সকালে মসজিদে ফজর নামাজ পড়িয়ে বাড়ি ফেরার পরপরই  পূর্ব পরিকল্পনা মাফিক ইমরান সরদারের নেতৃত্বে দেশীয় অস্ত্র শস্ত্রে সজ্জিত সন্ত্রাসী বাহিনী ইমাম হাফেজ জাহাঙ্গীরের ঘরে প্রবেশ করে জাহাঙ্গীরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং তার মাথায় আঘাত করতে থাকে। এতে জাহাঙ্গীর  অচেতন হয়ে নিচে পড়ে থাকে। এসময় তার প্রতিবন্ধী স্ত্রী ছবি বেগমকে প্রহার করে তার সাথে থাকা গলার চেইন, কানের দুল সহ স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নেয়। যার আনুমানিক বাজার মূল্য ২ লক্ষাধিক টাকা। এ সময় তার প্রতিবন্ধী  ছেলে সাব্বির, মেয়ে দশম শ্রেণির ছাত্রী মিমকেও মারধর করে। বেড়াতে আসা বোন নাসিমা বেগম (৩৮) এবং ভগ্নপতি খলিলুর রহমান বাঁধা দিতে আসলে তাদেরকেও লাঞ্ছিত করে ওই সন্ত্রাসীরা। উল্লেখ্য,  স্ত্রী ছবি বেগম ও ছেলে সাব্বির  ভাতাপ্রাপ্ত প্রতিবন্ধী। 

এঘটনায় নেতৃত্ব  দেওয়া সৎভাই  ইমরান সরদার পার্শ্ববর্তী শরণখোলা সাব-রেজিস্ট্রি  অফিসে  কর্মরত বলে জানা যায়।

এ ব্যাপারে স্ত্রী ছবি বেগম  থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানান।

অভিযুক্ত  ইমরান সরদার  বলেন, আমার বাবা স্ট্রেক করে খুবই  অসুস্থ  অবস্থায়  আছেন। তার চিকিৎসার  যাবতীয়  খরচ আমি ব্যায় করছি। বাবার এ অবস্থায়  তাকে বিরক্ত করতে পরিবারের  সবাইকে  নিষেধ  করি। তা সত্বেও তারা জমি-জমা নিয়ে কথা তুললে তাদের সাথে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতি  হয়েছে মাত্র। তবে এ ঘটনা পারিবারিক ব্যাপার আমরা আবার পারিবারিকভাবে সমাধান করে নিবো। এ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন ও থানায় অভিযোগ করার কোন প্রয়োজন হয় না।