Opu Hasnat

আজ ২২ মে বুধবার ২০২৪,

শতবর্ষী গাছের গোড়া পঁচে ঝুঁকে পড়েছে, দুর্ঘটনার আশঙ্কা নীলফামারী

শতবর্ষী গাছের গোড়া পঁচে ঝুঁকে পড়েছে, দুর্ঘটনার আশঙ্কা

সৈয়দপুর শহরের শহীদ ক্যাপ্টেন শামসুল হুদা সড়কের ওপর একটি শতবর্ষী রেইনট্রি গাছের গোড়া পঁচে বিপজ্জনকভাবে ঝুঁকে পড়েছে। এতে দুর্ঘটনার আশংকায় দ্রুত অপসারণের দাবি জানিয়েছেন পথচারিসহ স্থানীয় বাসিন্দারা।

সৈয়দপুর বিমানবন্দর ও সেনানিবাস এলাকা হয়ে শহরে প্রবেশের একমাত্র পথ শহীদ ক্যাপ্টেন শামসুল হুদা সড়ক। তবে এটি বিমানবন্দর সড়ক এবং ক্যন্টনমেন্ট সড়ক নামেই সমধিক পরিচিত। যে কারণে   রেলওয়ে শহর বলে খ্যাত সৈয়দপুর শহরের একমাত্র ভিআইপি সড়ক এটি । কিন্তু সড়কের ওপর একটি পাতা ঝড়া শুকনো রেইনট্রি গাছের গোড়া পঁচন ধরে  অন্য একটি গাছের ওপর ঝুঁকে পড়েছে। একই অবস্থা অন্য গাছটিরও। তাই দাড়ানো গাছটি ভাঙ্গা গাছের ওজন বহন করলেও যে কোন মূহুর্তে সেটিও বিপজ্জনকভাবে ঝুঁকে আছে। ফলে দুই লেনের ভিআইপি এ সড়কে যানবাহন ও স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের চলাচলে ঝুঁকি তৈরি হয়েছে। গত মাসাধিক কাল ধরে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্হায় থাকলেও সেটি অপসারণে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগ  কিংবা স্থানীয় উপজেলা বা পৌর প্রশাসন।

স্থানীয়রা জানান, সড়কের উভয় পাশে রেলওয়ের আবাসিক এলাকা ও শতবর্ষি বিভিন্ন গাছগাছালিতে আচ্ছাদিত। গাছগুলোর অধিকাংশের গোড়ায় পঁচন ধরেছে ফলে সব গাছই ঝুঁকিপুর্ণ। তবে ঝড়ো মৌসুমে এই গাছগুলো ঝুঁকিপুর্ণ হয়ে ওঠে। এরই মধ্যে ওই দুটি গাছ অনেক আগেই ঝুঁকে পড়েছে।

ওই এলাকার বাসিন্দা রেজাউল করিম বলেন,  সড়কটি  দিয়ে  সৈয়দপুর বিমানবন্দর, উপজেলা পরিষদ, কয়েকটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এ্যান্ড কলেজ, সরকারি বিজ্ঞান কলেজ, সেনানিবাস এলাকায় প্রতিদিন শতশত রিক্সা, ভ্যান, অটোরিক্সা, পণ্যবাহী গাড়ি, কাভার্ড ভ্যান, মাইক্রোবাসসহ স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা চলাচল  করে। তাই গাছ দুইটি অপসারণ করা জরুরি।

অটো চালক জাভেদ আলম বলেন, গোড়ায় পঁচনসহ অন্য গাছটি যেভাবে ঝুঁকে আছে, তাতে গাছের নিচ দিয়ে অটো চালাতে আমাদের ভয় লাগে।

আমিনুল ইসলাম নামে এক মাইক্রোবাস চালক বলেন, মাইক্রোবাস যেতে পারছে। কিন্ত ১৫ থেকে ২৫ ফুট উঁচুর কারণে ওই পথ দিযে ট্রাক চলাচল করতে পারে না। এতে দুর্ঘটনার আশঙ্কা থাকে।

সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজের শিক্ষার্থী সুমন বলেন, কলেজ শেষে প্রতিদিন হেটে কিংবা ভ্যানগাড়ি, সাইকেল, মোটরসাইকেলে শিক্ষা  বিভিন্ন বাহনে শিক্ষার্থীরা চলাচল করে। এ গাছ দু’টি যে কোন সময় মাটিতে আছড়ে পরতে পারে। তাই এ নিয়ে দু:চিন্তায় আছি।

সৈয়দপুরে রেলওয়ের সড়ক রক্ষনাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা উর্ধতন উপ সহকারি প্রকৌশলী/কার্য  শরিফুল ইসলাম বলেন, গাছগুলো দেখভালের দায়িত্ব রেলওয়ের। তাই কিছু প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে দ্রুত গাছ দুটি অপসারণ করা হবে।