Opu Hasnat

আজ ৫ জুলাই মঙ্গলবার ২০২২,

গোপালগঞ্জে বাস-প্রাইভেটকার সংঘর্ষে এক পরিবারের তিনজনসহ নিহত ৮ গোপালগঞ্জ

গোপালগঞ্জে বাস-প্রাইভেটকার সংঘর্ষে এক পরিবারের তিনজনসহ নিহত ৮

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের তিনজনসহ ৮ জন প্রাণ হারিয়েছেন। শনিবার (১৪ মে) সকাল ১১টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দক্ষিণ ফুকরা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, গোপালগঞ্জ শহরের ডা. বাসুদেব সাহা, স্ত্রী শিবানী সাহা, ছেলে আহসানাউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র স্বপ্নীল সাহা ও প্রাইভেটকার চালক ঢাকার আদাবর থানার দোয়ারী এলাকার আ. রশিদ মিয়ার ছেলে মো. আজিজ মিয়া, কাশিয়ানী উপজেলার ফুকরা গ্রামের ফিরোজ মোল্লা ও তাঁর রুমা বেগম, অনিক মিয়া, জেসমিন আক্তার।

এ ঘটনায় গুরুতর আহত কলি খানম, দিদার শরীফ, বদর মিয়া, সোবাহান, বায়েজীদ, আর্জু বেগম, কালাম মিয়া, মাহফুজ, কামরুল, ফারুক, মাসুম মোল্লা, হীরা, হাওয়া বেগম, হোসাইন, আ. রহমান, জোহরা, ইসমোতারা, আলিফ, সিফাতকে গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে দু’জনের অবস্থা আশংকাজনক বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। বাকি আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, সকালে ব্যক্তিগত প্রাইভেটকারে করে বারডেম হাসপাতালের চিকিৎসক বাসুদেব সাহা স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে ঢাকা থেকে গোপালগঞ্জ যাচ্ছিলেন। অপরদিকে, কাশিয়ানীর ফুকরা থেকে একটি মোটরসাইকেল নিয়ে অনিক মিয়া ও জেসমিন আক্তার গোপালগঞ্জমুখি আসছিলেন। ঘটনাস্থলে প্রাইভেটকার ও ওই মোটরসাইকেলের সংঘর্ষ হয়। এ সময় বরগুনার পাথরঘাটা থেকে ঢাকাগামী রা‌জিব প‌রিবহনের এক‌টি দ্রুতগামী যাত্রীবাহী বাস অপর একটি নসিমনকে সাইড দিতে গেলে প্রাইভেটকারের সাঙ্গে বাসের সংঘর্ষ হয়। তখন প্রাইভেটকারটি দুমড়ে-মুচড়ে মহাসড়কের পাশে ধান মাড়াইরত মে‌শিনের ওপর ছিটকে পড়ে এবং যাত্রীবাহী বাসটি গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে রাস্তার ওপর উল্টে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলে ডাক্তার বাসুদবে সাহা, তার স্ত্রী ও সন্তান ও ধান মাড়াইরত ফিরোজ মোল্লা ও তার স্ত্রীসহ ৭ জন ঘটনাস্থলে নিহত হন।

রাজিব পরিবহনের যাত্রী মো. শহিদুল আলম বলেন, তিনি বরগুনার পাথরঘাটা ছেলেকে নিয়ে ঢাকা যাচ্ছিলেন। দুর্ঘটনায় পতিত বাসটির পিছনের দিকের সিটে তিনি ছিলেন। বাসটির গতি অনেক বেশি থাকায় চালক বাসটির নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারেননি। মুহূর্তের মধ্যে বাসটি রাস্তার উপর উল্টে যায়। এতে তার শিশু সন্তান খুব ভয় পেয়েছে। বাসের অনেক যাত্রী আহত হয়েছেন।

এ বিষয়ে ভাঙ্গা হাইওয়ে থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক সিরাজুল ইসলাম জানিয়েছেন, বরগুনা থেকে ঢাকাগামী রাজিব পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে গোপালগঞ্জমুখী প্রাইভেকার ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষ হয়। এ সময় প্রাইভেটকারটি দুমড়ে-মুচড়ে যায় এবং সড়কের পাশে ধান মাড়াইরত মেশিনের ওপর গিয়ে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলে একই পরিবারের তিনজন, ধানমাড়াইরত দু’জনসহ মোট সাতজন নিহত হন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ২৫ জন।

তিনি আরও বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস কর্মী ও স্থানীয়রা হতাহতদের উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল এবং কাশিয়ানী ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে গোপালগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও একজন মারা যান।

গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা, কাশিয়ানী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেহেদী হাসানসহ জেলা ও পুলিশ প্রশসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে উদ্ধার কাজ তদারকি করেন। 

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারকে ১০ হাজার টাকা ও আহতদের প্রত্যেককে চিকিৎসার জন্য পাঁচ হাজার করে টাকা দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

এই বিভাগের অন্যান্য খবর