Opu Hasnat

আজ ২১ মে শনিবার ২০২২,

সৈয়দপুরে উড়োজাহাজ ও ট্রেনে যাত্রী চাপ বেড়েছে নীলফামারী

সৈয়দপুরে উড়োজাহাজ ও ট্রেনে যাত্রী চাপ বেড়েছে

নীলফামারীর সৈয়দপুর থেকে চলাচলকারী উড়োজাহাজ ও ট্রেনগুলো সময়সূচি অনুযায়ী চলাচল করছে। ফলে যাত্রীদের চাপ বেড়েছে। শীতের সময় বিমানের সিডিউল ঠিক রাখতে না পারলেও এখন সিডিউল অনুযায়ী চলাচল করছে। ফলে বিমানে যাত্রী চাহিদা বেড়েছে। অপরদিকে সৈয়দপুর থেকে ঢাকা, রাজশাহী ও খুলনার উদ্যেশে চারটি আন্ত:নগর ট্রেন চলাচল করলেও প্রায় সময় সিডিউল ঠিক রাখতে পারছে না। এছাড়া টিকিট না পাওয়ার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। 

সৈয়দপুর-ঢাকা রুটে বর্তমানে বাংলাদেশ বিমান, নভো এয়ার ও ইউএস-বাংলার মোট ১৩টি ফ্লাইট পরিচালনা করছে। এছাড়া সৈয়দপুর-চট্টগ্রাম রুটে ইউএস-বাংলার একটি ফ্লাইট পরিচালনা করলেও সেটি চলাচল বন্ধ রয়েছে। সৈয়দপুর-কক্সবাজার রুটে বাংলাদেশ বিমানের দুটি ফ্লাইট পরিচালনা করছে। 

ইউএস-বাংলা সকাল ৯টা, দুপুর  ১২টায়, দুপুর  বিকেল ৩টা ৩৫ মিনিটে,ও রাত ৯টায় সৈয়দপুর থেকে ঢাকার উদ্যেশে চলাচল করছে। নভো এয়ারের ফ্লাইট সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে, বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে, দুপুর ২টা ২০ মিনিটে, সন্ধ্যা ৭টা ২০ মিনিটে ও রাত ৯টায় নিয়মিত চলাচল করছে।  বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইট সকাল  ৯টা ৫৫ মিনিটে, ৩টা ২৫ মিনিটে ও রাত ৮টা ৩৫ মিনিটে সৈয়দপুর ছেড়ে যায়। সৈয়দপুর-কক্সবাজার রুটে বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইট বুধবার ও বৃহস্পতিবার ৯ টা৫৫ মিনিটে চলাচল করছে।

অপরদিকে, বরেন্দ্র এক্সপ্রেস সকাল ৭টা ৫ মিনিটে রাজশাহীর উদ্দেশ্যে সৈয়দপুর ছেড়ে যায়। রূপসা এক্সপ্রেস খুলনার উদ্দেশে সকাল ৯টা ৩৫ মিনিটে ছেড়ে যায়। একইভাবে চিলাহাটি-ঢাকাগামী নীলসাগর আন্ত:নগর এক্সপ্রেস ট্রেনটি রোববার ছাড়া প্রতিদিন রাত ৯টা ৩ মিনিটে সৈয়দপুর স্টেশন ছেড়ে যায়। 

বিমান সৈয়দপুর জেলা ব্যবস্থাপক হারুন অর-রশিদ জানান, সৈয়দপুর থেকে ঢাকা ও কক্সবাজার রুটে নিয়মিত বিমান চলাচল করছে। পরবর্তীতে বিমানের রুট আরও সম্প্রসারণ করার চিন্তাভাবনা চলছে। 

এসব ট্রেন প্রায় সময় সিডিউল ঠিক রাখতে পারছে না। ফলে ট্রেন যাত্রীদের ভোগান্তি বেড়েছে। সিন্ডিকেট ছাড়া এসব ট্রেনের টিকিট কাউন্টারে না মেলার অভিযোগ রয়েছে। এ নিয়ে কয়েকদফা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অভিযান চালালেও টিকিট কালোবাজারি থামছে না।   

সৈয়দপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোখছেদুল মোমিন বলেন, নীলসাগর আন্ত:নগর ট্রেনের আরেকটি র্যাক দিনের বেলায় চালানোর এই জনপদের মানুষের দীর্ঘদিনের। বিষয়টি রেলমন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে জানানো হলেও এখনো কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না।