Opu Hasnat

আজ ২১ জানুয়ারী শুক্রবার ২০২২,

ব্রেকিং নিউজ

সীমিত কোচ আসন থাকায় নীলসাগর ট্রেনে টিকিট পাওয়া যাচ্ছে না নীলফামারী

সীমিত কোচ আসন থাকায় নীলসাগর ট্রেনে টিকিট পাওয়া যাচ্ছে না

সৈয়দপুর-ঢাকা রুটে একমাত্র এক্সপ্রেস ট্রেন ছিল নীলসাগর। পরবর্তীতে এই ট্রেন নিয়ে যাওয়া হলো চিলাহাটি পর্যন্ত। বর্তমানে এই ট্রেন চিলাহাটি-ঢাকা রুটে চলালাচল করছে। এতে যাত্রী সংখ্যা বিপুলভাবে বেড়ে যাওয়ায় কোচ আসন সীমিত হয়ে গেছে। প্রতিদিনই অনেকে টিকিট না পেয়ে ক্ষোভ নিয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন। অন্যদিকে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায় বাসের ভাড়া বেড়েছে। হাইওয়ে সড়কে দুর্ঘটনাসহ নানা কারণে ট্রেনে যাত্রী সংখ্যা বাড়ছে। কিন্তু বাড়েনি ট্রেনে আসনের সংখ্যা। চিলাহাটি থেকে ঢাকাগামী আন্তনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনে কোচ বৃদ্ধি ও ২য় ট্রেন (ডাবল ট্রেন) চালুর দাবি করেছেন নীলফামারী জেলার মানুষ।

যাত্রীরা জানান, নীলসাগর আন্ত:নগর ট্রেনে যাত্রী সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় ট্রেনে দাঁড়িয়ে যাওয়ার মতো জায়গা থাকছে না। তারা  বলেন, প্রায় সময় নীলসাগর ট্রেনটিতে তিল ধারণের ঠাঁই থাকে না। অনেকে টিকিট না পেয়ে পার্বতীপুর থেকে একতা, পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ট্রেনে যাতায়ত করছেন। এতে সময় ও অর্থ দুটোই অপচয় হচ্ছে যাত্রীদের। নীলসাগর ট্রেনটিতে অতিরিক্ত দুটি কোচ সংযোজন করা হলে রেলের যেমন রাজস্ব আয় বাড়বে তেমনি স্বাচ্ছন্দ্য ভ্রমন নিশ্চিত করা যাবে। 

স্টেশনে এসে টিকিট না পেয়ে প্রতিদিনই ফিরে যাচ্ছেন যাত্রীরা। এমন পরিস্থিতির কথা স্বীকার করেন সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশনের সহকারি স্টেশন মাস্টার আলমগীর হোসেন। তিনি বলেন, ট্রেনের টিকিট দিতে হিমশিম খাচ্ছি আমরা। সেটিং সমৃদ্ধ ট্রেনটিতে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহনের সুযোগ নেই। ভ্রমনের পাঁচদিন আগে অনলাইন ও স্টেশন কাউন্টারে টিকিট বিক্রি শুরু হয়। প্রথম দিনেই শেষ হয়ে যাচ্ছে সব টিকিট। বাকি দিনগুলোতে টিকিট না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন যাত্রীরা।

নীলফামারী পৌরসভার মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদ জানান, বাস ভাড়া বেড়ে যাওয়ায় ট্রেনে চাপ বেড়েছে। নীলফামারী অঞ্চলের মানুষ নীলসাগর ট্রেনের আরেকটি ট্রেন দাবি করেছেন। এছাড়া বর্তমানে চলমান নীলসাগরে অতিরিক্ত দুটি কোচ সংযোজনের দাবি জানান তিনি।

সংরক্ষিত আসনের সাংসদ রাবেয়া আলীম বলেন, নীলসাগরে টিকিট পাচ্ছে না যাত্রীরা। বিষয়টি রেল মন্ত্রীকে জানিয়েছি আমি। সেই সাথে আরেকটি ট্রেন চালুর কথাও বলেছি। তিনি আমাকে আশ্বস্ত করেছেন।

এনিয়ে কথা পশ্চিমাঞ্চল রেলের বিভাগীয় বাণিজ্যিক কর্মকর্তা (ডিসিও) নাসির উদ্দিনের সাথে। তিনি বলেন, বিষয়টি রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিবকে জানানো হয়েছে। কোচটি আসন বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে। অতিরিক্ত কোচ সংযোজন হলে রেলের আয় বাড়বে জানান তিনি।