Opu Hasnat

আজ ২৪ জানুয়ারী সোমবার ২০২২,

লাহুড়িয়া ইউনিয়নে ভোটের মাঠ কাপাচ্ছেন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদপ্রার্র্থী প্রকৌশলী কামরান নড়াইল

লাহুড়িয়া ইউনিয়নে ভোটের মাঠ কাপাচ্ছেন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদপ্রার্র্থী প্রকৌশলী কামরান

নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার লাহুড়িয়া ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদপ্রার্র্থী প্রকৌশলী এসএম কামরুল সিকদার কামরান ভোটের মাঠ কাপাচ্ছেন। তিনি বিগত নির্বাচনে অল্প ভোটে পরাজিত হন।

শনিবার (২৭ নভেম্বর) লাহুড়িয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন হাট, বাজার ও গ্রাম ঘুরে জানা গেছে, প্রকৌশলী কামরান হোসেন পারিবারিক ভাবইে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। এলাকায় তাঁর ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। আওয়ামী লীগ দলীয় অধিকাংশ নেতা-কর্মী  তার পক্ষে আদাজল খেয়ে মাঠে নেমেছেন। বিগত নির্বাচনে হেরে গেলেও ইউনিয়নবাসির কাছ থেকে সরে যাননি। তিনি নিজের কাজ ফেলে এই দীর্ঘ সময় একাধারে মানুষের পাশে রয়েছেন। দলীয় নেতা-কর্মী ও সাধারণ মানুষের বিপদে-আপদে ঝাপিয়ে পড়েন। এলাকার মসজিদ, মন্দির, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ সকল সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানে তাঁর অবদান রয়েছে। দলের প্রতিটি কর্মসূচীতে আর্থিক অনুদান দেয়া সহ লোকজন নিয়ে তাঁর স্বতস্ফুর্ত অংশগ্রহন দলকে করেছে সমৃদ্ধ। তাঁর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে দলের মধ্যে ও এলাকার মানুষের মধ্যে শান্তি শৃংখলা ফিরিয়ে আসায় এলাকায় তাঁর একটি শক্ত অবস্থান রয়েছে। রাজনীতির মাঠে ও সমাজ সেবায় তরুন এ সমাজ সেবকের ক্লিন ইমেজ থাকায় এলাকার অধিকাংশ মানুষ তাঁর উপর আস্থাশীল। সে কারনে দলীয় ও সাধারণ লোকজন মনোনয়ন না পেলেও তাঁকে নির্বাচনে অংশ নিতে বাধ্য করেছেন। যুগ যুগ ধরে ওই এলাকায় চলে আসা কাইজ্যা, দাঙ্গা বন্ধে তিনি অবিস্মরণীয় ভূমিকা রেখেছেন। দীর্ঘকাল ধরে চলে আসা খুনের রাজনীতিতে ছন্দ পতন ঘটিয়ে এলাকায় শান্তি প্রতষ্ঠিায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। সুদর্শণ তরুন সমাজসেবক এসব গুরুত্বপূর্ণ ভূমকা রেখে অতি অল্প সময়ে আপদমস্তক একজন খাঁটি সমাজসেবক হয়ে উঠেছেন। তাই তো তাঁকে একান্ত ভাবে কাছে পেতে ও তার মাধ্যমে লাহুড়িয়া ইউনিয়নের উন্নয়নের গতি ত্বরাণ্বিত করতে ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী করেছেন এলাকার সুধি সমাজ। এ ইউনিয়নে তিনি ও নৌকা প্রতিকের প্রার্থী সহ ৬জন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন।

একটি সূত্রে জানা গেছে, শুধুমাত্র তাঁর বিজয়ের পথ সুগম করতে প্রার্থীদের দু’একজন প্রার্থীতা প্রত্যাহার করতে পারেন। এক সাক্ষাতকারে লাহুড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী প্রকৌশলী কামরান জানান, তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক। তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে পারবিারকি ভাবেই জড়িত। ছাত্রলীগের রাজনীতির মধ্যদিয়েই তিনি বেড়ে উঠেছেন। দলের সকল সিদ্ধান্তের প্রতিই তিনি শ্রদ্ধাশীল। এলাকার রাজনীতি ও গণমানুষের সাথে বিচ্ছিন্ন থাকা ব্যক্তিকে মনোনয়ন দেয়ায় বিষয়টি স্থানীয় নেতা-কর্মীরা মেনে নিতে পারেননি। সে কারনে দলের অধিকাংশ নেতা-কর্মী ও সাধারণ জনগনের চাপের মুখে তিনি প্রার্থী হতে বাধ্য হয়েছেন। বিজয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, বিজয়ী হলে এলাকায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনীতিকে আরোও শক্তিশালী করার পাশাপাশি লাহুড়িয়া ইউনিয়নকে মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলবেন।